‘চিৎকার বন্ধ করুন’, উদ্দাম যৌনতার আর্তনাদে কান ঝালাপালা প্রতিবেশীদের

27

শীতের মধ্যরাত। প্রায় সব বাড়ির জানলা-দরজা বন্ধ। তবু তা ভেদ করেই বাইরে যাচ্ছে যৌন (Sex) পরিতৃপ্তি মেশানো মহিলার চিৎকার। আর যা কানে পৌঁছনোমাত্রই অস্বস্তি বোধ করছেন প্রতিবেশীরা। এ শব্দ কানে যাওয়ার ঘটনা অবশ্য একদিনের নয়। প্রতিবেশীদের দাবি, সমস্যা প্রায় প্রতিদিনের। তাই বাধ্য হয়ে মহিলাকে টুইট করেন পড়শিরা। আর সেই টুইটই এখন নেটদুনিয়ায় ভাইরাল। ওই টুইটের পালটা জবাবও দিয়েছেন মহিলা।

ভাইরাল হওয়া ওই টুইটে মহিলাকে উদ্দেশ্য করে লেখা হয়েছে, CAN YOU PLEASE STOP SCREAMING LIKE A PIG [AT] DAFT O’CLOCK WHEN YOU SH***ING!!! WE ALL SICK OF IT!!! NEIGHBOURS.” যার বাংলা তর্জমা করলে দাঁড়ায়, “দয়া করে আপনি মধ্যরাতে শূকরের মতো চিৎকার করা বন্ধ করবেন। আমরা সকলে এই শব্দে অসুস্থ বোধ করি। প্রতিবেশীবৃন্দ।”

এই টুইটটি নেটদুনিয়ায় বিদ্যুতের গতিতে ভাইরাল হয়ে যায়। যা মহিলারও নজরে পড়ে। তিনি অবশ্য এই টুইট দেখে একটু অস্বস্তি বোধ করেননি। পরিবর্তে তিনি লিখেছেন, “আমার মনে হত, আমি ভেষজ সুগন্ধীর মতো আওয়াজ করি। কিন্তু এখন দেখছি তা নয়।” মহিলার জবাবি টুইটও মন ছুঁয়েছে অনেকের। প্রায় এক হাজারেরও বেশি বার রিটুইট করা হয়েছে টুইটটি। লাইক, কমেন্টের বন্যাতে আপাতত ভাসছেন মহিলা।

যৌনতার সময় ‘শূকরের মতো চিৎকার’ ইস্যুতে দ্বিধাবিভক্ত নেটদুনিয়া। অনেকেই বলছেন, “প্রতিবেশীরা দুঃখে আছেন তাই এসব কথা বলেছেন।” আবার কেউ কেউ প্রথম টুইটের বয়ান নিয়েও মজা করছেন। লিখেছেন, “এই নোট যিনি লিখেছেন তিনি বোধহয় নতুন আওয়াজ শুনতে চাইছেন। তিনি হয়তো শূকরের আওয়াজ পছন্দ করেন না।” “মহিলার প্রতিবেশীদের জীবনে মশলার প্রয়োজন” বলেও দাবি করেছেন কেউ কেউ। এই টুইটটি ভাইরাল হওয়ার পর অনেকেরই প্রশ্ন, একজন মহিলা ব্যক্তিগত জীবনে কী করবেন আর কী করবেন না, তা কি প্রতিবেশীরা ঠিক করতে পারেন। তবে কি সত্যিই এখনও সমাজ সাবালক হয়নি, সেই প্রশ্নও করছেন অনেকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here