ফেসবুকে তরুণীর আত্মহত্যার স্ট্যাটাসের পর যা ঘটলো?

9

বাংলাদেশের রাজধানীর রূপনগরের এক তরুণী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আত্মহত্যার স্ট্যাটাস দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তারই আরেক বান্ধবী পুলিশের সহযোগিতার জন্য ‘জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯’ ফোন করেন। ফোন পাওয়ায় মেয়েটির বাড়িতে ছুটে যান রূপনগর থানা–পুলিশ। পরে পুলিশ মেয়েটিকে উদ্ধার করেন। পুলিশ তরুণীকে বুঝিয়ে তারই এক বান্ধবীর বাসায় রেখে আসে এবং কথা বলে মেয়েটির স্বামীর সঙ্গেও।

পুলিশের পরিদর্শক ও জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯–এর ফোকালপারসন আবদুস সাত্তার সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা জানান।
জানা গেছে, তরুণী আগে মিডিয়ায় কাজ করতেন। স্বামী তাকে মিডিয়ার চাকরি ছেড়ে দিতে বলেন। পরে তরুণী স্বামীর কথা অনুযায়ী মিডিয়ার চাকরি ছেড়ে দেন। এরপরও তরুণীর স্বামী বিভিন্নভাবেই ওই তরুণীকে তার স্বামী শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতেন।

এছাড়াও তরুণীটি বাবার বাড়ি ঝিনাইদহ থেকে রূপনগরে তার স্বামীর বাড়িতে আসলে তার স্বামী বাড়ির দারোয়ানকে বলে দিয়েছেন, তাকে যেন বাড়িতে ঢুকতে দেওয়া না হয়। এসব হতাশার কারণে তরুণী ফেসবুকে আত্মহত্যার স্ট্যাটাস দিয়েছেন।
রূপনগর থানার এসআই এনামুল বলেন, তরুণীর স্বামীর সঙ্গে তিনি ফোনে কথা বলেছেন এবং তিনি (তরুণীর স্বামী) তাকে জানিয়েছেন ঢাকায় ফিরে তিনি বিষয়টি মীমাংসা করে নেবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here