পঞ্চমীর রায়েও আগের নির্দেশই বহাল কলকাতা হাইকোর্টের

38

দর্শক শূন্য মণ্ডপেই হবে পুজো। পঞ্চমীর রায়েও আগের নির্দেশই বহাল রেখেছে কলকাতা হাইকোর্ট। তবে পুজো উদ্যোক্তাদের রিভিউ পিটিশনের প্রেক্ষিতে আগের রায় পুনর্বিবেচনা করে সামান্য পরিবর্তন করেছেন ।

এ দিনের পরিবর্তিত রায়ে বলা হয়েছে, ঢাকিরা মণ্ডপের নো এন্ট্রি জোনেরমধ্যে থাকতে পারবেন। তা ছাড়া বড় পুজোগুলোর মণ্ডপে কমিটির ৬০ জন সদস্যের তালিকা তৈরি করা যাবে। একসঙ্গে সর্বোচ্চ ৪৫ জন মণ্ডপে ঢুকতে পারবেন। আগে এই সংখ্য়াটা ছিল ২৫। বিচারপতিদের নির্ধেশ অনুসারে, যে সব মণ্ডপের আয়তন ৩০০ স্কোয়ার মিটার বা তার বেশি সেগুলিকে বড় মণ্ডপ বলে বিবেচনা করা হবে। মণ্ডপে প্রবেশ করা ব্যক্তিদের নাম রোজ বদল করা যাবে।

ছোটো মণ্ডপের ক্ষেত্রে ১৫ জনের তালিকা তৈরি করতে হবে। একসঙ্গে ১০ জনের বেশি মণ্ডপে প্রবেশ করতে পারবেন। সেই তালিকায় প্রত্যেক দিন বদল ঘটানো যাবে।

গত সোমবারই ঐতিহাসিক রায় দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট। রায়ে বলা হয়েছিল প্রতিটি পুজো মণ্ডপ এবার কন্টেইনমেন্ট জোন বলে গণ্য হবে। কোনও মণ্ডপেই দর্শনার্থীরা প্রবেশ করতে পারবেন না। প্রতিটি মণ্ডপের বাইরে নো এন্ট্রি বোর্ড ঝুলিয়ে রাখতে হবে। উদ্যোক্তাদের তরফে সর্বোচ্চ ২৫ জনের মণ্ডপে প্রবেশের অনুমতি থাকবে। তাঁদের নামের তালিকা আগে থেকেই মণ্ডপের গায়ে ঝুলিয়ে দিতে হবে। ছোট মণ্ডপ হলে তার ৫ মিটার এবং বড় মণ্ডপ হলে তার ১০ মিটারের মধ্যে কোনও দর্শনার্থী প্রবেশ করতে পারবে না। দূর থেকে দেখতে হবে। মন্ডপের শেষ প্রান্ত থেকে ফিতে মেপে ওই গণ্ডি তৈরি করতে হবে। দর্শক শূন্য রেখে পুজো পরিচালনার ব্যবস্থা সুনিশ্চিত করবে পুলিশ-প্রশাসনকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here